উপনিবেশবাদ বলতে কী বােঝ | উপনিবেশ স্থাপনের কারণ গুলাে কি কি

উপনিবেশবাদ বলতে কী বােঝ | উপনিবেশ স্থাপনের কারণ গুলাে কি কি

উত্তর:

উপনিবেশবাদ

শব্দের উৎস এবং অর্থ: উপনিবেশবাদ শব্দটি ইংরেজি ‘Colo-nialism’ শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ। আবার উপনিবেশবাদ বা ‘Colo-nialism’ কথাটি এসেছে লাতিন শব্দ ‘Colonia’ থেকে যার অর্থ হল বিশাল সম্পত্তি বা এস্টেট (estate)।

সংজ্ঞা: সাধারণভাবে বলা যায় কোনাে দেশ যদি অন্য দেশের ভূখণ্ড বা অঞ্চলকে নিজের অধীনস্থ করে নেয় তাহলে সেই অঞ্চলটির নাম হয় উপনিবেশ। ‘Encyclopedia of Social Sciences’ গ্রন্থে উল্লেখ করা হয়েছে যে উপনিবেশবাদ হল অন্য দেশের ভৌগােলিক অঞ্চলের ওপর শাসন প্রতিষ্ঠা ও সামগ্রিক নিয়ন্ত্রণ।

উপনিবেশ স্থাপনের কারণসমূহ

১) বৃহৎ শক্তিশালী হয়ে ওঠার আকাঙ্ক্ষা :- 

উপনিবেশ স্থাপনের অন্যতম একটি কারণ হলো বিশ্বের বৃহৎ শক্তি হিসেবে মর্যাদা লাভের আকাঙ্ক্ষা। উপনিবেশের অর্থনৈতিক সম্পদ, জনশক্তি ও তার ভূ-খণ্ডের আয়তন, সামরিক গুরুত্ব এই সমস্ত কিছু মিলিয়েই উপনিবেশিক শক্তির মর্যাদা বা গুরুত্ব নির্ধারিত হয়। গুরুত্বপূর্ণ উপনিবেশ গুলিকে নিজের অধীনে এনে বৃহৎ শক্তি হিসাবে মর্যাদা লাভের আকাঙ্ক্ষায় ইউরোপীয় দেশগুলি পারস্পরিক প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হয়।

২) উদ্বৃত্ত মূলধন :- 

শিল্পোন্নত দেশগুলিকে মূলধনী শ্রেণি নতুন নতুন মূলধন লগ্নির দ্বারা মুনাফার পাহাড় জমিয়ে উদ্ধত্ত মূলধন সৃষ্টি করে। এই উদ্ধত্ত মূলধন দেশের বাইরের কোন শিল্পে লগ্নি করে আরো মুনাফা অর্জন করে মূলধনী শ্রেণি সচেষ্ট হয়ে ওঠে। এই লক্ষ্যে তারা নিজ নিজ দেশের সরকারকে উপনিবেশ দখলের জন্য চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। মূলধনের স্ফীত পরোক্ষভাবে উপনিবেশবাদ উন্নয়নের প্রেক্ষাপট রচনা করেন।

৩) পুঁজিবাদের প্রসার :- 

পুঁজিবাদের প্রসার ঘটানোর প্রচেষ্টায় বেশকিছু উপনিবেশ গড়ে ওঠে। বিশেষত্ব, আধুনিক উপনিবেশিক সাম্রাজ্য স্থাপনের পর সাম্রাজ্য বিস্তারের পথ প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে পুঁজিবাদের প্রসার বিশেষ সাহায্য করেছে।

৪) সামরিক শক্তি বৃদ্ধির প্রচেষ্টা :- 

সামরিক শক্তি বাড়ানোর প্রচেষ্টা থেকেও উপনিবেশ গড়ে উঠেছে। অনেক সময় অধিকৃত অঞ্চলে নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখার জন্য উপনিবেশের জনগণের দ্বারাই সামরিক বাহিনী গঠন করা হয়েছে। দখলীকৃত অঞ্চলের জনগণকে দমন করার কাজে বা সেই অঞ্চলের সংসদ শোষন করার কাজে এই সামরিক বাহিনীই ব্যবহার করা হয়েছে।

৫) কাঁচামালের আমদানি এবং উৎপাদিত পণ্যের রপ্তানি :- 

শিল্প বিপ্লবের কল্যাণে ইউরোপীয় দেশগুলি শিল্পন্নত দেশে পরিণত হয়। বিভিন্ন ধরনের শিল্প পণ্য উৎপাদনের জন্য অফুরন্ত কাঁচামাল যোগানের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। পাশাপাশি উৎপাদিত পণ্য সামগ্রী বিক্রয়ের জন্য সু-বৃহৎ ও আন্তর্জাতিক বাজারেরও দরকার পড়ে।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

1 thought on “উপনিবেশবাদ বলতে কী বােঝ | উপনিবেশ স্থাপনের কারণ গুলাে কি কি”

Leave a Comment

error: Content is protected !!