সংবেদন এর ধর্ম গুলি কি কি | সংবেদন এর লক্ষণ বা ধর্ম উল্লেখ করো

সংবেদন এর ধর্ম গুলি কি কি | সংবেদন এর লক্ষণ বা ধর্ম উল্লেখ করো

উত্তর :

সংবেদন-এর ধর্ম বা লক্ষণ :

সংবেদনের ধর্মগুলিকে প্রথমে দুটি শ্রেণিতে ভাগ করা যায়। এগুলি হল— (1) গুণগত ধর্ম এবং (2) পরিমাণগত ধর্ম। নীচে সংবেদন-এর গুণগত এবং পরিমাণগত ধর্মগুলি সংক্ষেপে আলােচনা করা হল— 

গুণগত ধর্ম :

সংবেদন-এর গুণগত ধর্মের জন্যই সংবেদন যথার্থ হয়। গুণগত ধর্মের ফলেই ভিন্ন ভিন্ন সংবেদনকে ব্যক্তি পৃথক করতে পারে। কানে শােনার সংবেদনকে চোখে দেখার সংবেদন থেকে খুব সহজেই আলাদা করা যায়। একই কারণে লাল বর্ণের। সংবেদন ব্যক্তির মধ্যে কখনােই নীল বর্ণের সংবেদন সৃষ্টি করে না।

গুণগত সংবেদন আবার দু-প্রকারের হয়। যথা— 

[1] জাতিগত সংবেদন: একই ইন্দ্রিয়ের উদ্দীপনার ফলে উদ্ভত সংবেদনগুলি এক জাতির হয়। যেমন সব ধরনের চাক্ষুষ। সংবেদন, বা সব ধরনের শ্রবণজাত সংবেদনের জাতিগত গুণ এক। শােনার সংবেদন-এর সঙ্গে দেখার সংবেদনের পার্থক্য হল। জাতিগত পার্থক্য।

[2] উপজাতিগত সংবেদন: একই ইন্দ্রিয়ের উদ্দীপনার। ফলে উদ্ভূত সংবেদনগুলি একই জাতিগত গুণবিশিষ্ট হলেও তাদের মধ্যে যে পারস্পরিক বিভেদ বা বৈসাদৃশ্য রয়েছে তাই হল। উপজাতিগত পার্থক্য। যেমন—হলুদ বর্ণের সংবেদন এবং সবুজ। বর্ণের সংবেদন একই জাতিগত গুণবিশিষ্ট হলেও তাদের মধ্যে যে। বৈসাদৃশ্য বর্তমান, তা হল উপজাতিগত পার্থক্য।

পরিমাণগত ধর্ম :

সাইরেনের তীক্ষ্ণ, তীব্র আওয়াজ এবং বাঁশির মধুর সুরধ্বনি — দুই-ই আমাদের মধ্যে শুতি সম্পর্কীয় সংবেদন সৃষ্টি করে। এরা একজাতীয়। কিন্তু এদের মধ্যে প্রথমটির সংবেদন তীব্র এবং দ্বিতীয়টির সংবেদন ক্ষীণ। এক্ষেত্রে সংবেদনের পার্থক্য হল পরিমাণগত। পরিমাণগত পার্থক্য বিভিন্ন প্রকারের হয়। যেমন — 

[1] তীব্রতা : এটি হল সংবেদনের পরিমাণগত ধর্ম। সংবেদনের তীব্রতা উদ্দীপকের শক্তির ওপর নির্ভর করে। বজ্রপাতের শব্দ এবং বাড়িতে রেডিয়াে চলার শব্দের মধ্যে যে পার্থক্য দেখা যায়, তা তীব্রতার পার্থক্য। 

[2] স্পষ্টতা : একই ধরনের বিভিন্ন সংবেদনের মধ্যে স্পষ্টতার দিক থেকেও পার্থক্য দেখা যায়। কোনাে সংবেদন বেশি স্পষ্ট আবার কোনাে সংবেদন কম স্পষ্ট।

[3] থায়িত্ব : কোনাে সংবেদন যতক্ষণ পর্যন্ত স্থায়ী হয়েছে, তাকে ওই সংবেদনের স্থায়িত্ব বা স্থিতিকাল বলে। কোনাে সংবেদন ক্ষণকালের জন্য স্থায়ী হয়, আবার কোনাে সংবেদন কিছুকালের জন্য স্থায়ী থাকে।

[4] ব্যাপ্তি : কোনাে সংবেদন যতটা জায়গাজুড়ে হয়, তাকেই সংবেদনের ব্যাপ্তি বলে। ইন্দ্রিয়ের কতটা জায়গা উদ্দীপকের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে, তার ওপর সংবেদনের ব্যাপ্তি নির্ভর করে।। সংবেদনের উপরােক্ত লক্ষণ বা ধর্মগুলি ছাড়াও কোনাে কোনাে মনােবিদ অপর একটি ধর্ম বা লক্ষণ সম্পর্কে অভিমত ব্যক্ত করেন। সেটি হল— স্থানীয় ধর্ম।

স্থানীয় ধর্ম :

দেহের বিভিন্ন জায়গায় স্পর্শের সংবেদন বিভিন্ন রকমের হয়। চোখ বন্ধ রাখা অবস্থায়, কোনাে ব্যক্তির ত্বকের কোনাে অংশ স্পর্শ করা হল তা ব্যক্তি বলে দিতে পারে স্থানীয় ধর্ম’-এর জন্যে।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!