মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনা ও দেশভাগ সম্পর্কে একটি বিশ্লেষণমূলক আলােচনা করাে। 

মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনা ও দেশভাগ সম্পর্কে একটি বিশ্লেষণমূলক আলােচনা করাে।  4 Marks/Class 10

উত্তর:-

ভূমিকা : ভারতে ক্ষমতা হস্তান্তর ও দেশভাগের মূল ভিত্তি ছিল মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনা (৩ জুন, ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ)। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্লিমেন্ট এটলির ক্ষমতা হস্তান্তর সংক্রান্ত ঘােষণার পরেই লর্ড মাউন্টব্যাটেন ভারতের বড়ােলাট পদে নিযুক্ত হয়ে আসেন (২৪ মার্চ, ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ)। 

পরিকল্পনা : জাতীয় কংগ্রেস ও মুসলিম লিগ-সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলাপ-আলােচনার পর মাউন্টব্যাটেন ভারত বিভাগ সংক্রান্ত পরিকল্পনা ঘােষণা করেন, যা মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনা নামে পরিচিত (৩ জুন, ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ)।

সংবাদপত্রে দেশের স্বাধীনতা ঘােষণা

মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনা : মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনায় বলা হয়েছিল —

১. পাকিস্তান গঠন : ভারতের মুসলিম প্রধান অঞ্চলগুলিকে নিয়ে এবং পাঞ্জাব ও বাংলাদেশকে খণ্ডিত করে পাকিস্তান নামক একটি পৃথক রাষ্ট্র গঠন করা যেতে পারে। বাংলা ও পাঞ্জাবের খণ্ডিতকরণের জন্য একটি সীমানা নির্ধারণ কমিশন গঠিত হবে। 

২. গণভােট : উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের বালুচিস্তান, আসামের অন্তর্গত সিলেট জেলা পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্ত হবে কিনা তা গণভােটের মাধ্যমে ঠিক করা হবে।

৩. স্বাধীনতা আইন : ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য ব্রিটিশ পার্লামেন্ট শীঘ্রই আইন প্রণয়ন করবে এবং ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দের জুনের পরিবর্তে ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দের ১৪ই আগস্ট এই ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে। 

উপসংহার : মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনার মাধ্যমে ভারত বিভাজনের মাধ্যমে পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠনের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছিল। স্বাভাবিক কারণেই কম ক্ষতিকর বিকল্প রূপে মাউন্টব্যাটেন পরিকল্পনাকে মুসলিম লিগ ও জাতীয় কংগ্রেস মেনে নিয়েছিল।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!