ভারতীয়দের খাদ্যাভ্যাস আলােচনা করে ঔপনিবেশিক পর্বে তার কী পরিবর্তন হয়েছিল তা আলােচনা করাে। 

ভারতীয়দের খাদ্যাভ্যাস আলােচনা করে ঔপনিবেশিক পর্বে তার কী পরিবর্তন হয়েছিল তা আলােচনা করাে। Mark 4 | Class 10

উত্তর:-

ভূমিকা: রাজনীতি, অর্থনীতি ও ভৌগােলিক প্রভাবে ভারতের বর্তমান খাদ্যাভ্যাস প্রভাবিত হয়েছে। ভারতস্থ বিদেশি শাসকদের কাছ থেকে আমরা বিদেশিদের অনেক খাদ্যাভ্যাস আয়ত্ত করেছি ভারতের খাদ্যাভ্যাসের দিক বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়—

১) খাদ্য বৈচিত্র্য : ভারতের জলবায়ু ও ভূপ্রকৃতির তারতম্য অনুযায়ী কোথাও ভাত, কোথাও রুটি, কোথাও জোয়ার-বাজরা জাতীয় শস্য থেকে তৈরি ‘মিলেট’ হল ভারতীয়দের প্রিয় খাদ্য। 

২) বিদেশি খাদ্য : প্রাক্-ঔপনিবেশিক পর্বে ভারতীয় খাদ্য তালিকায় যে সমস্ত বিদেশি খাদ্য ছিল সেগুলি হল আলু, চিনাবাদাম, ভুট্টা, টম্যাটো, সয়াবিন বা সিম, পালং শাক। পাশাপাশি আমিষ খাবারও ছিল, যেমন—কাচ্চি ও পাক্কি বিরিয়ানি, কাবাব, মাছের বিভিন্ন পদ বা তরকারি।

৩) রন্ধনশৈলী : খাদ্যাভ্যাসের ইতিহাসচর্চায় ভারতীয় খাবার ও রন্ধনশৈলী বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থান লাভ করেছে, কারণ ভারতীয় রন্ধনপ্রণালীর মধ্যে যে ব্যাপক বৈচিত্র্য রয়েছে, তা সমগ্র ইউরােপের রন্ধনশৈলীর সঙ্গে তুলনীয়। ভারতে মূলত চার ধরনের রন্ধনশৈলী রয়েছে, যেমন—
প্রথমত, উত্তর ভারতীয় রন্ধনশৈলী (বেনারস, কাশ্মীর, দিল্লি, পাঞ্জাব ও রাজস্থান);
দ্বিতীয়ত, দক্ষিণ ভারতীয় রন্ধনশৈলী (অন্ধ্রপ্রদেশ, কর্ণাটক, কেরল ও তামিলনাড়ু);
তৃতীয়ত, পূর্ব ভারতীয় রন্ধনশৈলী (বাংলা ও অসম);
চতুর্থত, পশ্চিম ভারতীয় রন্ধনশৈলী (মহারাষ্ট্র, মালব ও গুজরাট)।

ঔপনিবেশিক পর্বে পরিবর্তন : ঔপনিবেশিক শাসনপর্বে প্রথমত, ভারতীয়রা, ভাত, ডাল, সবজি, রুটি ও আমিষ (মাছ, মাংস) খাবারের পাশাপাশি পাশ্চাত্য খাবারের প্রতিও আকৃষ্ট হয়েছিল। | দ্বিতীয়ত, বিদেশি খাবারের প্রতি এই আকর্ষণ শহরে বসবাসকারী। ইংরেজি শিক্ষিত উচ্চবিত্ত (শিক্ষক, ডাক্তার, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী ও জমিদার শ্রেণি) শ্রেণির একাংশের মধ্যেই সীমিত ছিল। তৃতীয়ত, এঁরা শাসক-ইংরেজদের ভােজসভায় উপস্থিত হয়ে এদেশীয় সামাজিক বিধিনিষেধ ভেঙে নিষিদ্ধ মাংস, চা, কফি, সিগারেট ও মদ্যপান করত। 

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!