ভারতে অনূধর্ব সতেরাে বিশ্বকাপ ফুটবল | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

ভারতে অনূধর্ব সতেরাে বিশ্বকাপ ফুটবল – মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

ভারতে অনূধর্ব সতেরাে বিশ্বকাপ ফুটবল

উত্তর:

ভারতে অনূধর্ব সতেরাে বিশ্বকাপ ফুটবল

ভূমিকা: ফুটবল ভারতে জনপ্রিয় খেলা হলেও বিশ্বফুটবলে ভারতের উপস্থিতি নিতান্তই নগণ্য। বিশ্বকাপের সময়ে ফুটবলপ্রেমী বাঙালিরা তাই মনে মনে হয়ে যায় ব্রাজিল, জার্মানি কিংবা আর্জেন্টিার নাগরিক। একসময় এশিয়ান গেমসে সােনাজয়ী ভারত সাম্প্রতিককালে সার্ক ফুটবলেও চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি। এই হতাশা এবং ব্যর্থতার পরিসরে সমস্ত ভারতবাসী গর্বের সুযােগ পেয়ে যান—যখন ভারত অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল সংগঠনের দায়িত্ব পায়।

অনূধর্ব সতেরাে বিশ্বকাপের ইতিহাস : ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে সিঙ্গাপুরে অনুর্ধ্ব ১৬ ফুটবল প্রতিযােগিতা লায়ন সিটি কাপের খেলা দেখতে গিয়ে ফিফার তৎকালীন জেনারেল সেক্রেটারি জোসেফ ব্লাটারের মাথায় আসে গােটা পৃথিবীকে নিয়ে এরকম প্রতিযােগিতা করানাের। আর তার ফলেই ১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দে চিনে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম ফিফা অনুর্ধ্ব ১৬ বিশ্বকাপ। প্রথমবার এই প্রতিযােগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় নাইজেরিয়া। এরপর প্রতি চারবছর অন্তর এই বয়সভিত্তিক বিশ্বকাপ প্রতিযােগিতার আয়ােজন হয়ে চলেছে। ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দ থেকে অনুর্ধ্ব ১৬ বয়সসীমাকে বাড়িয়ে ১৭ করা হয়েছে।

ভারতে বিশ্বকাপ সংগঠন : ২০১৩ খ্রিস্টাব্দের ৫ ডিসেম্বর ফিফা সরকারিভাবে ভারতকে ২০১৭-র অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ সংগঠনের দায়িত্ব দিয়েছিল। আজারবাইজান, আয়াল্যান্ড এবং উজবেকিস্তানের দাবিকে টপকে ভারত এই দায়িত্ব পায়। কলকাতা-সহ দেশের মােট ছ-টি স্টেডিয়ামকে বেছে নেওয়া হয় প্রতিযােগিতার জন্য। ৬ থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এই প্রতিযােগিতায় ৬টি মহাদেশ থেকে ২৪টি দেশ অংশগ্রহণ করে। ভারত সংগঠক হিসেবে প্রথমবার এই বিশ্বকাপে খেলার সুযােগ পায়।

খেলার কথা : আগেরবারের চ্যাম্পিয়ন নাইজেরিয়া ২০১৭-র বিশ্বকাপে খেলার যােগ্যতাই অর্জন করেনি। ২৮ অক্টোবর ফাইনালে মুখােমুখি হয় ইংল্যান্ড এবং স্পেন। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড দর্শকদের ফেভারিট ব্রাজিলকে হারায় ৩-১ গােলে। ব্রুস্টার একাই তিনটি গােল করে হ্যাট্রিক করেন। অন্য সেমিফাইনালে ওই একই ফলাফলে স্পেন মালিকে রাজিত করে। যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে বুদ্ধশ্বাস ফাইনালে ইংল্যান্ড স্পেনকে ৪-২

গােলে পরাজিত করে। ইংল্যান্ডের এটিই প্রথম অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ জয়। মালিকে হারিয়ে ব্রাজিল পায় তৃতীয় স্থান। মােট ৫২টি ম্যাচে এবারের বিশ্বকাপে গােল হয়েছে ১৮৩টি। মােট দর্শকসংখ্যা ১,৩৪৭,১৩৩, যা একটা রেকর্ড। প্রতিযােগিতার সর্বোচ্চ গােলদাতা ইংল্যান্ডের রায়ান ব্ৰুস্টার, সেরা খেলােয়াড় নির্বাচিত হন ইংল্যান্ডেরই ফিল ফডেন।

ভারতের প্রাপ্তি : সংগঠক দেশ হিসেবে অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপে ভারত খেলার সুযােগ পায়। ফিফার কোনাে বিশ্বপর্যায়ের প্রতিযােগিতায় এটাই ভারতের প্রথম অংশগ্রহণ। তবে ভারতীয় ফুটবলের নিয়ামক সংস্থা এআইএফএফ প্রস্তুতির জন্য দশ কোটি টাকা খরচ করেন এবং বিদেশে প্রস্তুতি ম্যাচের ব্যবস্থা করে। পাের্তুগিজ কোচ লুইস নর্টন দে মাতােসের প্রশিক্ষণাধীন ভারত ছিল শক্তিশালী গ্রুপে। প্রথম ম্যাচে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ভারত পরাজিত হয় ৩-০ গােলে, দ্বিতীয় ম্যাচে তীব্র লড়াই করে ভারত কলম্বিয়ার কাছে হেরে যায় ২-১ গােলে। ঘানা শেষ ম্যাচে ভারতকে হারায় ৪-০ গােলে। কিন্তু এই ব্যর্থতার মধ্যেও ভারতীয় ফুটবলারদের লড়াই সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছে। ধীরাজ সিং, রহিম আলি প্রমুখের দক্ষতা ফুটবল অনুরাগীদের মন জয় করেছে।

উপসংহার : সবশেষে এ কথা বলতেই হয় যে, ভারতের সংগঠন দক্ষতাকে কুর্নিশ করেছে গােটা ফুটবল দুনিয়া। ফিফার কর্তা এবং প্রতিযােগিতাপ্রধান জেইমে ইয়ারজা উচ্ছ্বসিতভাবে বলেছেন—“All these stadia are not only of FIFA U-17 World Cup level but of (senior) FIFA World Cup level. In every aspect, India can host bigger FIFA events in future.” | আপাতত ভারতবাসীরা এই স্বপ্নকেই লালন করে চলেছে যে একদিন হয়তাে যুবভারতীর সবুজ ঘাসে দেখা যাবে আগামীর কোনাে রােনাল্ডাে বা মেসির অসাধারণ ফুটবল দক্ষতা আর তার সঙ্গে পা মেলাবে আমাদের অভিজিত বা অনিকেত যাদবরা। উপসংহারহীন এ এক স্বপ্নের এগিয়ে চলা।

আরো পড়ুন

নিরক্ষরতা দূরীকরণে ছাত্রসমাজ | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

বিশ্ব উষ্ণায়ন | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

র‍্যাগিং এবং ছাত্র সমাজ | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

এ জীবন চলতে চলতে | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

ভ্রমণের মুল্য | মানস মানচিত্র অবলম্বনে বাংলা প্রবন্ধ রচনা

Read More »

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!