ভারতে শিল্প গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে কাঁচামালের প্রভাব উদাহরণ-সহ ব্যাখ্যা করাে।

ভারতে শিল্প গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে কাঁচামালের প্রভাব উদাহরণ-সহ ব্যাখ্যা করাে।  Class 10 | Geography | 3 Marks

উত্তর:-

ভারতে শিল্প গড়ে ওঠার ক্ষেত্রে কাঁচামালের প্রভাব: বস্তুুসূচকের (বস্তুসূচক = কঁচামালের ওজন/উৎপাদিত পণ্যের ওজন) মানের উপর ভিত্তি করে শিল্পে ব্যবহৃত কাচামালকে দুইভাগে ভাগ করা হয়, যথা—1. বিশুদ্ধ কাঁচামাল এবং 2. অবিশুদ্ধ কাঁচামাল। শিল্পের অবস্থানে এই দুই ধরনের কাঁচামালের প্রভাব খুব বেশি, যেমন— 

1. বিশুদ্ধ কাঁচামালের প্রভাব: যখন নির্দিষ্ট ওজনের কাঁচামাল থেকে প্রায় একই ওজনের পণ্য উৎপাদিত হয়, অর্থাৎ বস্তুুসূচকের মান 1 বা 1-এর কাছাকাছি থাকে, তাকে বিশুদ্ধ কাঁচামাল বলে, যেমন কার্পাস বা তুললা, পাট ইত্যাদি। এইসব বিশুদ্ধ কাঁচামালনির্ভর শিল্পগুলির উৎপাদন প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত কাঁচামালের ওজন ও উৎপাদিত পণ্যের ওজন প্রায় একই হয় বলে শিল্পগুলি কাঁচামালের উৎসের কাছে বা বাজারের কাছে বা অন্য যেকোনাে সুবিধাজনক স্থানে গড়ে উঠতে পারে। এজন্য এগুলিকে শিকড় আলগা বা অস্থানু শিল্প বলে। 
উদাহরণ : মহারাষ্ট্র গুজরাটে উৎপাদিত কার্পাসের উপর ভিত্তি করে শুধু ওই দুই রাজ্যেই নয়, বহু দূরের হুগলি শিল্পাঞ্চল-সহ পূর্ব ও উত্তর ভারতের বহু স্থানেই কার্পাস বয়ন শিল্প গড়ে উঠেছে।

2. অবিশুদ্ধ কাঁচামালের প্রভাব: যে কাঁচামালের ওজন উৎপাদিত পণ্যের ওজনের চেয়ে বেশি হয়, অর্থাৎ বস্তুসূচকের মান -এর বেশি হয়, তাকে অবিশুদ্ধ বা ওজনহ্রাসসীল কাচামাল বলে, যেমন—আখ, আকরিক লােহা ইত্যাদি। আখ থেকে চিনি উৎপাদন করলে তার ওজন কমে যায়। এজন্য পরিবহণ ব্যয় কমাতে অবিশুদ্ধ কাঁচামাল ব্যবহারকারী শিল্পগুলি কঁচামালের উৎসের কাছে গড়ে ওঠে। 
উদাহরণ : আখ উৎপাদনকারী মহারাষ্ট্র উত্তরপ্রদেশ প্রভৃতি রাজ্যে ভারতের অধিকাংশ চিনি কল গড়ে উঠেছে।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!