বারখান ও ড্রামলিন এর পার্থক্য।

পার্থক্য লেখাে: বারখান ও ড্রামলিন। Class 10 | Geography | 3 Marks

উত্তর:-

বারখান ও ড্রামলিনের পার্থক্য : বারখান ও ড্রামলিনের মধ্যে প্রধান পার্থক্যগুলি হল—

বিষয়বারখান ড্রামলিন
ধারণাবারখান হল বালিয়াড়ি স্তুূপ lড্রামলিন হল শিলাখণ্ডের স্তুূপ l
সৃষ্টি এটি বায়ুর সঞ্জয়কার্যের ফলে সৃষ্টি হয়।এটি হিমবাহ ও জলধারার পর মিলিত সঞয়কার্যের ফলে সৃষ্টি হয়।
আকৃতি এটি দেখতে অর্ধবৃত্তাকার বা অর্ধচন্দ্রাকৃতি হয়।এটি দেখতে উলটানাে নৌকা বা চামচের মতাে হয়।
অবস্থানধু-ধু মরুভূমির মাঝে অত্যন্ত শুষ্ক পরিবেশে দেখা যায়।পর্বতের পাদদেশে শীতল ও আর্দ্র পরিবেশে দেখা যায়। 
গঠনবায়ুপ্রবাহের সঙ্গে তির্যক বা আড়াআড়িভাবে গঠিত হয়।হিমবাহ বা বরফগলা জলপ্রবাহের গতিপথের সঙেগ সমান্তরালভাবে গঠিত হয়।
উচ্চতাএর উচ্চতা 30 মিটার পর্যন্ত হয়।এর উচ্চতা 50 মিটার পর্যন্ত হয় হয়।
দৈর্ঘ্য ও প্রস্থএর দৈর্ঘ্য ও প্রথ প্রায় সমান হয় যা সর্বাধিক 200 মিটার হতে দেখা যায়।এর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ যথাক্রমে প্রায় 500 মিটার এবং 2 কিমি পর্যন্ত হয়।
ঢালএর বায়ুমুখী ঢাল মৃদু এবং বিপরীত দিকের ঢাল যথেষ্ট খাড়া হয়।এর হিমবাহমুখী ঢাল বেশ খাড়া এবং বিপরীত দিকের ঢল মৃদু হয়।
অন্যান্য অধিকাংশ সময় বারখানগুলি মরুভূমিতে এককভাবে অবস্থান করে।বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অনেকগুলি ড্রামলিনকে পাশাপাশি, এমনকি ঝাঁকে ঝাঁকেও দেখা যায়।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!