আম্বেদকর ও প্রাথমিক পর্বের দলিত আন্দোলনের মধ্যে সম্পর্ক চিহ্নিত করাে।

আম্বেদকর ও প্রাথমিক পর্বের দলিত আন্দোলনের মধ্যে সম্পর্ক চিহ্নিত করাে।  4 Marks/Class 10

উত্তর:-

ভূমিকা : ভারতে দলিত আন্দোলনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন ড. বাবাসাহেব ভীমরাও রামজি আম্বেদকর (১৮২৯-১৯৫৬ খ্রি.) বা সংক্ষেপে বি আর আম্বেদকর l তিনি উনিশ শতকের শেষার্ধে দলিতদের মধ্যে গড়ে ওঠা সংহতিকে বিশ শতকে রাজনৈতিক আন্দোলনে পরিণত করেন।

বি আর আম্বেদকর

আম্বেদকর ও দলিত আন্দোলন : আম্বেদকর নিজে একজন দলিত সম্প্রদায়ভুক্ত হয়ে দলিতদের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে যুক্ত হন —

১. হিতকারিণী সভা প্রতিষ্ঠা : হিন্দুসমাজের মূলস্রোত থেকে বিচ্ছিন্ন বা বহিষ্কৃত অস্পৃশ্যদের উচ্চবর্ণের হিন্দুদের হাত থেকে রক্ষা করার উদ্দেশ্যে আম্বেদকর তার অনুগামীদের নিয়ে গঠন করেন বহিষ্কৃত হিতকারিণী সভা’ (১৯২৪ খ্রি.)।

২. নিপীড়িত শ্রেণির সম্মেলন : ১৯২৬ খ্রিস্টাব্দে নাগপুরে সর্বভারতীয় নিপীড়িত শ্রেণির নেতাদের অনুষ্ঠিত সম্মেলন দলিতদের আন্দোলনে গতি সঞ্চার করে। ড. আম্বেদকর এই সমিতির সহ-সভাপতি নিযুক্ত হন। 

৩. মনুস্মৃতি’ দাহ : ১৯২৭ খ্রিস্টাব্দে আম্বেদকর সর্বসাধারণের ব্যবহার্য পুকুর থেকে দলিতদের জল তােলার অধিকার নিয়ে বিরাট সত্যাগ্রহ আন্দোলন পরিচালনা করেন এবং প্রকাশ্যে মনুস্মৃতি গ্রন্থ পুড়িয়ে দিয়ে ব্রাত্মণ্যতন্ত্রে আঘাত হানেন।

৪. সংগঠন প্রতিষ্ঠা : ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে তিনি সর্বভারতীয় নিপীড়িত শ্রেণির কংগ্রেস গঠন করেন এবং প্রতিষ্ঠানের উদবােধনী ভাষণে সরাসরি কংগ্রেস-বিরােধী অবস্থান গ্রহণ করেন।

৫. পুনা চুক্তি : সাম্প্রদায়িক বাঁটোয়ারা নীতিতে দলিতদের পৃথক নির্বাচন বিধি স্বীকৃতি পেলেও গান্ধিজির অনশনের কারণে শেষপর্যন্ত আম্বেদকর গান্ধির সঙ্গে পুনা চুক্তি (১৯৩২ খ্রি.) সম্পাদনের মাধ্যমে দলিতদের রাজনৈতিক অধিকারকে ক্ষুন্ন করেও স্বার্থরক্ষায় সচেষ্ট হন।

উপসংহার : পুনা চুক্তির সময়কাল পর্যন্ত দলিত আন্দোলনের সংগঠনে আম্বেদকরের ভূমিকা ছিল খুব উল্লেখযােগ্য। পুনা চুক্তি পরবর্তীকালে তার উদ্যোগে দলিত অধিকার আন্দোলন আরও এগিয়ে যায়।

Note: এই আর্টিকেলের ব্যাপারে তোমার মতামত জানাতে নীচে দেওয়া কমেন্ট বক্সে গিয়ে কমেন্ট করতে পারো। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

error: Content is protected !!